জৈন্তাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শনে ১৭ পরগনার নেতৃবৃন্দ- চিকিৎসা সেবা স্বাভাবিক করার আহবান চিকিৎসকদের

Spread the love

জৈন্তাপুর প্রতিনিধি:: জৈন্তাপুরে মর্মান্তিক সড়ক দুঘর্টনায় ৪ ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যুর ঘটনা-কে কেন্দ্র করে চিকিৎসকদের অবহেলার কারনে উত্তোজিত ছাত্র-জনতা কর্তৃক জৈন্তাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লক্স ভাংচুর করাসহ সরকারি গাড়িতে অগ্নি সংযোগের ঘটনার সরজমিনে পরিদর্শন করেন জৈন্তিয়া ১৭ পরগনা সালিশ সমন্বয় কমিটির নেতৃবৃন্দ।মঙ্গলবার (২৩ জানুয়ারি) দুপুর ২টায় ১৭ পরগনা সালিশ সমন্বয় কমিটির সভাপতি আবু জাফর আবুল মৌলা চৌধুরী’র নেতৃত্বে হাসপাতালের ভাংচুর করা এলাকা পরিদর্শন করেন জৈন্তাপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামাল আহমদ, সাবেক চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন, ইমরান আহমদ সরকারি মহিলা কলেজের সহকারী অধ্যাপক শাহেদ আহমদ, নিজপাট ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ ইন্তাজ আলী, দরবস্ত ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বাহারুল আলম বাহার, চিকনাগুল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান চৌধুরী, উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হাফিজ, প্রবীণ মুরব্বী আব্দুস শুক্রুর, হায়দও আলী, জৈন্তাপুর প্রেসক্লাব সভাপতি নুরুল ইসলাম, সাবেক সাধারন সম্পাদক গোলাম সরওয়ার বেলাল, নিজপাট ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মনজুর এলাহী সম্রাট সহ সমাজের গন্যমান্য ব্যক্তিগণ।হাসপাতাল পরিদর্শন কালে নেতৃবৃন্দ আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ মমি দাস সহ অন্যান্য চিকিৎসক, নার্সদের সাথে ঘটনার বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন এবং হাসপাতালের চিকিৎসকদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরধার ও চিকিৎসা সেবা কার্যক্রম পুনরায় স্বাভাবিক করার আহবান জানান। প্রতিনিধি টিমের নেতৃবৃন্দ সকাল ১১টায় উপজেলা নিবার্হী অফিসার মোঃ সাজেদুল ইসলাম, সহকারি পুলিশ সুপার কানাইঘাট (সার্কেল) অলক কান্তি শর্মা, জৈন্তাপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ তাজুল ইসলাম (পিপিএম)’র সাথে পৃথক ভাবে ঘটনার বিষয় নিয়ে বৈঠক করেন।উল্লেখ্য: গত ১৯ জানুয়ারি-২০২৪ইং শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে এই মর্মান্তিক সড়ক দুঘর্টনা ঘটে সিলেট তামাবিল মহাসড়কের বাংলা বাজার সংলগ্ন লক্ষীপুর এলাকা নামক স্থানে। প্রাইভেট কার নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পার্শ্ববর্তী খাদের পানিতে পড়ে জৈন্তাপুর উপজেলা সদরের নিজপাটের বাসিন্দা ছাত্রলীগ নেতা নেহাল পাল (২৫), জুবায়ের আহসান (২৪), মেহেদী হাসান তমাল (২২) ও আলী হোসেন সুমন (২৩) মৃত্যুবরন করেন। তাদের মৃত্যুর সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে জৈন্তাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স-এ কয়েক শত ছাত্র-জনতা উপস্থিত হন, নিহতের স্বজন সহ বন্ধু-বান্ধব হাসপাতালের জরুরী এম্বুলেন্স সার্ভিস ও চিকিৎসা সেবার অভিযোগ এনে উপস্থিত ছাত্র-জনতার মধ্যে উত্তোজনা দেখা দেয়, ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেন ছাত্র-জনতা হাসপাতালে ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও দুটি গাড়িতে অগ্নীসংযোগ ও ভাংচুর করা হয়। এই ঘটনায় অজ্ঞাত নামা ৩ শত জন-কে আসামী করে জৈন্তাপুর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *